আনন্দযোগ ১

বেহুদা গালিব

বেহুদা গালিব মুহম্মদ নূরুল হুদা ১ মধ্যদিন থেকে মধ্যরাত আমার বৃক্ষের বুকে চালাও করাত; গালিব, বেহুদার এই তো বরাত! ২ বৃক্ষ, তুমি ছায়া হয়ে যাও করাতের দাঁত ভেঙে দাও। ৩ ছায়া, তুমি পথ হও, পথ। গালিব, বেহুদার এইতো শপথ। ৪ ক্ষয়ে যেতে যেতে শুধু বয়ে যাই। গালিব, কোথাও কি তবু রয়ে যাই? ৫ চশমাটা খুলে […]

কদম ফুলের গন্ধ

কদম ফুলের গন্ধ আসাদ মান্নান এ কেমন দুঃসময় ─বর্ষা আছে বৃষ্টি নেই; বৃষ্টি ছাড়া বর্ষার প্রকৃত রূপ খুঁজে পাওয়া যে মুশকিল ; উপরন্তু এখন পৃথিবী জুড়ে কী নির্মমভাবে মহামারী করোনার একক সাম্রাজ্যে মৃত্যুর উল্লাসে নৃত্যরত যমরাজ; মানুষ ও প্রকৃতির সঙ্গে জানি জন্মগতভাবে বর্ষার একটা মিষ্টি মধুর সম্পর্ক আছে, মেঘ ও জলের অন্তরঙ্গ সহবাসে শরীরের রন্ধ্রে […]

আমার আগুন চিহ্ন

আমার আগুন চিহ্ন ফারুক মাহমুদ প্রাণের স্বীকৃতি নিয়ে মানুষের জন্মদিন থাকে যে যার হিসেব বোঝে– কতটুকু আগুনের কতটুকু ছাই আমি খুঁজি শুদ্ধ আলো। মানুষের ভালোবাসা মন পেতে নেব হৃদয়ের পাত্র ভ’রে স্নেহ প্রীতি যত আছে সব ঢেলে দেব   রয়েছি পথের প্রেমে। ক্লান্তি নেই। কাছে কিংবা শত দূরে যাই দখলের দাগ নয়, চরণের চিহ্নছায়া রেখে […]

অলীক চিত্রকলা

অলীক চিত্রকলা ফরিদ আহমদ দুলাল পড়শির ঘরের দেয়ালে কুলাকুচার জল ফেলে আমি হতবাক জলের রেখায় ফুটে ওঠে স্বয়ং রবীন্দ্রনাথ ক্রমশ হারায় জলের কলা সে নয় দুর্বিপাক! শরৎ আকাশে মেঘে মেঘে আঁকি শত ছবি সব হামাগুড়ি দেয় শিশু মেঘ-ছবি হয়ে কখনো গৌতম-যীশু কখনো ক্ষুধার্ত ব্যাঘ্র-অবয়ব; স্নানঘরেও তো প্রায় প্রতিদিন জলে ছবি হয় কখনো মধুসূদন-জীবনানন্দ কখনো বুদ্ধদেব […]

কাকে দিই দোষ

কাকে দিই দোষ গোলাম কিবরিয়া পিনু আমারও দোষ আছে আমিও দোষী. দোষী নয় শুধু প্রাণী─এককোষী! আমিও তো লোভী মাত্রাজ্ঞানহীন! নিজের দিকে শুধু তাকাই আমিও তো টেনে-ছিঁড়ে নিয়েছি প্রয়োজনের তুলনায় কতকিছু! লোভের ছায়ায় হেঁটেছি পিছু পিছু! একবাড়ি হলে যেখানে চলেছে সেখানে তো আমারও দশবাড়ি, একগাড়ি হলে যেখানে চলেছে সেখানে আমারও পাঁচগাড়ি! আমি তো ক্ষতবিক্ষত করেছি বন […]

অমরার ফুল

অমরার ফুল ঝর্না রহমান (মর্মান্তিক দুর্ঘটনায় নিহত তেইশ বছরের তরুণ, ফ্লাইং অফিসার আয়মান আলী সায়রকে।)   একদিন আমার তলপেটের মসৃণ চামড়া তিরতির করে কেঁপে উঠেছিলো মা হেসে বলেছিলেন, ওখানে একটা ফুল ফুটছে! গর্ভফুল! আমি কখনো গর্ভফুল দেখিনি। মা বললেন, ওখান থেকে বেরিয়ে আসবে অমরার ফুল! ফুলশিশু দেখতে পাবে একদিন! অমনি চামড়ার নিচে নেচে ওঠে ঢেউ! […]

দুঃখ-উদ্যাপন

দুঃখ-উদ্যাপন মজিদ মাহমুদ তুমি আমায় বানিয়েছিলে কাঁদতে কাঁদতে চোখ দুটি ঝাপসা ছিল- শরীর ছিল বেদনায় নীল রক্তের আস্তরণগুলো সরাতে সরাতে বিধ্বস্ত যুদ্ধের মধ্যে তুমি আমার অস্থিগুলো একত্রিত করছিলে আর যতবার সংগঠিত করেছিলে ধূলিকণায় ততবার পথের ধারে ছড়িয়ে দিয়েছিল দুষ্ট ছেলেরা হে আমার বালিকা মাতা- তুমি কি এখনো ভুলেছ সেই বেদনা যদিও একদিন তুমিও থাকবে না […]

টি আই প্যারেড

টি আই প্যারেড শ্যামসুন্দর সিকদার আমি কার কাছে যাবো? কার কাছে? আর – কে লইবে এ পাপের দায় ? আমি ছুঁয়ে দিলে নাকি পাপ যায় পৃথিবীর গায় কত পাপ আছে বলো? আজ আমি তবে কি অস্পৃশ্য ? যেন নক্ষত্রের কাছে ঋণ রেখে চলেছে পৃথিবী সময় আমাকে যেন দিয়েছিল কিছু অনুযোগ। কে কে জানি যুধিষ্ঠির হতে […]

প্রহেলিকা

প্রহেলিকা কামরুল বাহার আরিফ আমার বিছানার চাদরে একটা উটের ছবি উটটা মধ্যপ্রাচ্য থেকে উপহার হিসেবে এসেছিল রাতের ঘুমঘোরে জলের তেষ্টা পেলে উট আমাকে তার সংরক্ষিত জলের থেকে তৃষ্ণা নিবারণ করে। আমার শূন্য বিছানায় নদীর ছবি থাকলে ঘুমঘোরে বা জাগরণে সাঁতার কাটতে পারতাম। একদিন একথা জেনে আফ্রোদিতির ছবি আঁকা একটা চাদর বিছিয়ে দিয়েছিল কেউ। তারপর রাতের […]

অতঃপর ঈশ্বর

অতঃপর ঈশ্বর গোলাম মোর্শেদ চন্দন যেদিন ঈশ্বর মারা যান সেদিন আমি অনাহারে ঘুমোতে পারিনি মসজিদে। চারদিকে মশাদের উলুধ্বনি আর আক্রমণ আমার জন্ম সত্ত্ব তখন বাজাচ্ছিল নিদারুণ অসহায় হতে হতে খুন করি সে রাতে ঈশ্বর ও বিশ্বাস। এখন আমি মানবিক ঈশ্বরহীন এক অনন্ত সত্তার মানুষ।

Scroll to top
error: Content is protected!!